এইমাএ পাওয়া

পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়াই ওইম্যাক্সের আইপিও অনুমোদন!

জুলাই ৯, ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিনিয়োগ বার্তা:

বিএসইসির কমিশন বৈঠকে ওইম্যাক্স ইলেকট্রোড লিমিটেডের প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) অনুমোদন হওয়ার দুই মাস পরও কোম্পানিটির কাছে পৌঁছেনি আনুষ্ঠানিক সম্মতিপত্র (Consent Letter)। এ কারণে কোম্পানিটি এখনো প্রসপেক্টাস প্রকাশ ও বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে আবেদন আহ্বান করতে পারেনি।

জানা গেছে, ওইম্যাক্স ইলেকট্রোডের আইপিও অনুমোদনের পর পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে বিএসইসির কাছে আপত্তি জানানো হয়। পরিবেশ অধিদপ্তর জানায়, কোম্পানিটির পরিবেশ ছাড়পত্র নেই। এর প্রেক্ষিতে বিএসইসি কোম্পানিটির আইপিওর সম্মতিপত্র ইস্যু স্থগিত রাখে।

পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেন, ক্যাপিটাল ইস্যু বিভাগের দায়িত্বরত নির্বাহী পরিচালক মাহবুবুল আলম, সংস্থাটির মুখপাত্র সাইফুর রহমানের সবাই এখন দেশের বাইরে অবস্থান করছেন। তাই এ বিষয়ে বিএসইসির কোনো বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

যোগাযোগ করা হলে ওইম্যাক্স ইলেকট্রোডের কোম্পানি সচিব মো: নাসির উদ্দিন পরিবেশ ছাড়পত্র না থাকার বিষয়টি কৌশলে এড়িয়ে যান। তিনি এ বিষয়ে বিনিয়োগ বার্তাকে বলেন, একটি ভূল বোঝাবুঝির কারণে একটু সমস্যা হয়েছিল। তবে সমস্যার সমাধান হয়েছে। আশা করছি শিগগিরই আমরা আইপিও’র অনুমতিপত্র পেয়ে যাবো।

উল্লেখ, গত ৯ মে অনুষ্ঠিত বিএসইসির ৬০৪তম কমিশন সভায় ওইম্যাক্স ইলেকট্রোড লিমিটেডের আইপিও’র অনুমোদন দেওয়া হয়।

খসড়া প্রসপেক্টাসের তথ্য অনুসারে, আইপিওতে ওইম্যাক্স লিমিটেড অভিহিত মূল্য ১০ টাকা দরে বাজারে দেড় কোটি শেয়ার বিক্রি করে বাজার থেকে ১৫ কোটি টাকা উত্তোলন করবে।

কোম্পানিটি মুলধনী যন্ত্রপাতি, প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি ও কাঁচামাল কিনতে এই অর্থ ব্যয় করবে। কিছু অর্থ ব্যয় করা হবে আইপিও’র খরচ মেটাতে।

২০১৬ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছর শেষে গত পাঁচ বছরে ওয়েটেড অ্যাভারেজে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ২ টাকা ৩ পয়সা। একইসময়ে শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) ১৪ টাকা ৮৭ পয়সা।

ওইম্যাক্স ইলেকট্রোড লিমিটেড উৎপাদিত প্রধান পণ্য হচ্ছে লোহার ঝালাইয়ের কাজে ব্যবহৃত ইলেকট্রোড রড। এর বাইরে কোম্পানিটি টাইগার ব্র্যান্ড তারকাটা ও জিআই তার উৎপাদন করে থাকে।

বিনিয়োগ বার্তা/পিএ