এইমাএ পাওয়া

ঝিনাইদহের জঙ্গি আস্তানায় তল্লাশি সমাপ্ত

মে ১৭, ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিনিয়োগ বার্তা:

গতকাল মঙ্গলবার সকালে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার চুয়াডাঙ্গা গ্রামে দুইটি জঙ্গি আস্তানা ঘেরাও করা হয়। সেই বাড়িতে আজ বুধবার দ্বিতীয় দিনের মতো অভিযান চালানো হয়েছে। প্রায় ২ ঘণ্টা অভিযানের পর তল্লাশি শেষ ঘোষণা করেছে র্যা ব।

তবে গতকাল উদ্ধার হওয়া সুইসাইড ভেস্টসহ অন্যান্য বোমা নিষ্ত্রিয় করার পরই অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন র্যা বের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান।

তিনি বলেন, গতকাল ওই দুই আস্তানার পাঁচটি স্থান থেকে দুইটি সুইসাইড ভেস্ট (আত্মঘাতী বন্ধনী), পাঁচটি শক্তিশালী বোমা, ১৮টি ডিনামাইট স্টিক, বোমা তৈরির ১৮৬টি পিভিসি সার্কিট, চার ড্রাম রাসায়নিক দ্রব্য ও একটি অ্যান্টিমাইন উদ্ধার করা হয়েছে। এরপর সন্ধ্যা ৬টার দিকে অভিযান স্থগিত করা হয়েছিল।

মুফতি মাহমুদ খান আরো বলেন, আজ সকাল পৌনে ৮টার দিকে চুয়াডাঙ্গার জঙ্গি আস্তানা দুইটি ঘিরে আবারও তল্লাশি অভিযান চালানো হয়েছে। তবে আর কিছুই পাওয়া যায়নি। বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দল ঘটনাস্থলে কাজ করছে। ঘটনাস্থলে অন্যান্যদের মধ্যে আরো রয়েছেন র্যা বের পরিচালক (অপারেশন) লেফটেন্যান্ট কর্নেল মাহমুদ, র্যা ব-৬-এর কমান্ডিং অফিসার এডিশনাল ডিআইজি খন্দকার রফিকুল ইসলাম, ঝিনাইদহ র্যা বের অধিনায়ক মেজর মনির আহমেদ প্রমুখ রয়েছেন।

মেজর মনির আহমেদ জানান, ঘটনাস্থল থেকে ২০০ গজের মধ্যে গত সোমবার ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছিল; তা আজও বলবৎ আছে। ২০০ গজের মধ্যে মধ্যে থাকা বাড়ির বাসিন্দাদের বাইরে চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, গত এক মাসের মধ্যে ঝিনাইদহের বিভিন্ন এলাকায় পাঁচটি জঙ্গি আস্তানার খোঁজ পেল আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

গত ২০ এপ্রিল সদর উপজেলার পোড়াহাটি গ্রামে আব্দুল্লাহ নামে ধর্মান্তরিত এক ব্যক্তির বাড়ি ঘিরে অভিযান চালায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। দুই দিনের অভিযান শেষে ওই জঙ্গি আস্তানা থেকে ২০টি কেমিক্যাল কন্টেইনার, ৬টি বোমা, ৩টি সুইসাইড ভেস্ট, ৯টি সুইসাইড বেল্টসহ বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। তবে সেখানে কাউকে পাওয়া যায়নি।

গত ২৬ এপ্রিল চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জের আরেক জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পাওয়া যায়। ওই অভিযানে চারজন নিহত হয়, ওই বাড়ি থেকে অস্ত্র ও সুইসাইড ভেস্ট পাওয়া যায়।

গত ৫ মে মহেশপুর উপজেলায় এক বাড়িতে পুলিশের অভিযানে নব্য জেএমবির দুই জঙ্গি নিহত হয়। আর সদর উপজেলার লেবুতলায় আরেক বাড়িতে পাওয়া যায় ৮টি বোমা ও একটি ৯ এমএম পিস্তল।

আর সর্বশেষ ১১ মে রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে এক জঙ্গি আস্তানা ঘিরে পুলিশের অভিযানে এক পরিবারের ৫জন নিহত হয়। জঙ্গিদের হামলায় নিহত হয় ফায়ার সার্ভিসের এক কর্মী। ওই বাড়ি থেকে ১১টি বোমা ও একটি পিস্তল উদ্ধার করে পুলিশ।

বিনিয়োগ বার্তা/পিএ