এইমাএ পাওয়া

উৎসবমুখর এনবিআরের ‘হালখাতা’

এপ্রিল ১৩, ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিনিয়োগবার্তা:

দেশের সর্বক্ষেত্রে একটি রাজস্ববান্ধব সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। তারই ধারাবাহিকতায় নববর্ষে বকেয়া রাজস্ব আদায়ে ‘হালখাতা’ আয়োজন করেছে এনবিআর।

এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমানের নির্দেশনায় আজ ৩০ শে চৈত্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ ১৩ এপ্রিল চৈত্র সংক্রান্তির দিনে বাংলাদেশের রাজস্ব ব্যবস্থাপনার ইতিহাসে ‘বকেয়া কর আদায় নয়, পরিশোধ’ প্রথমবারের মতো সারাদেশে রাজস্ব হালখাতা আয়োজন করা হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে ঢাকার কর অঞ্চলের কার্যালয়গুলোতে উৎসবমুখর পরিবেশে এই আয়োজন চলছে। এতে করদাতাদের বকেয়া রাজস্ব পরিশোধ ও করসেবা নিতে ভিড় করতে দেখা গেছে।

উল্লেখ, নববর্ষে ‘হালখাতা’ আমাদের গর্বিত বাংলা সংস্কৃতির অন্যতম ধারক।

সকাল ৯টা থেকে ‘ওপেন হাউজ ডে’ পরিবেশে ঢাকার কর অঞ্চলগুলোর পাশাপাশি সারাদেশের কর, ভ্যাট ও কাস্টমস অফিসে ‘রাজস্ব হালখাতা’ শুরু হয়েছে।

এনবিআরের অধীনস্থ বৃহৎ করদাতা ইউনিট (এলটিইউ)এর অধীনে ১ হাজার ১৪১ বৃহৎ করদাতা ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান রয়েছে। চলতি বছর এলটিইউ এর আদায়যোগ্য ৫০০ কোটি টাকার বকেয়ার বিপরীতে মার্চ পর্যন্ত আদায় হয়েছে প্রায় সাড়ে ৩০০ কোটি টাকা।

বাকি কর আদায়ে চেয়ারম্যানের নির্দেশনায় এলটিইউ ‘ওপেন হাউজ ডে’ এর পরিবেশে ব্যতিক্রমী ‘রাজস্ব হালখাতার’ আয়োজন করেছে।

গ্রাম-বাংলার ঐহিত্য মাটির হাঁড়ি, পাতিল, কলা গাছ, কুলো, হাতপাখাতা, মুখোশ, হাতির গেট আর রঙ বেরঙের দেয়াল কার্টুনে সাজানো হয়েছে এলটিইউ। মুল ভবনে ঢুকতেই চোখে পড়বে বিশালকৃতির হাতির শুঁড় দিয়ে সাজানো গেট। সম্মানিত করদাতাদের জন্য খোলা হয়েছে হালখানার ঐহিত্যবাহী নতুন রেজিস্টার খাতা। মাটির সানকিতে দেওয়া হয়েছে মিষ্টি, বাতাসা, নারিকেলের নাড়ু, সন্দেশ, খৈ, কদমা, মুরালি, নিমকী, মুড়ির মোয়া, চিড়ার মোয়া, তিলের খাজা, সুন্দরী পাকন পিঠা, শাহী পাকন পিঠা, নকশি পিঠা, ঝিনুক পিঠা, স্পন্স রসগোল্লা, দই, ডাবের পানি, তরমুজ, পেয়ারা, বরই ইত্যাদি।

দেশের সিংহভাগ রাজস্ব ব্যবস্থাপনায় অংশ নেওয়া বৃহৎ করদাতাদের সম্মানে এলটিইউ এর এই বিশেষ ও ব্যতিক্রমধর্মী আয়োজন। যা করদাতাদের আকৃষ্ট ও অনুপ্রাণিত করেছে। অনেক সম্মানিত করদাতা নিজেই এসে বকেয়া পরিশোধ করেছেন, অনেকেই আগেই পরিশোধ করে এসেছেন হালখাতার মিষ্টি খেতে, সাথে সম্পর্কটা সুদৃঢ় করতে ও আগামীতে ‘উন্নয়নের অক্সিজেন রাজস্ব’ ব্যবস্থানায় আরো বেশি সহযোগিতার আশ্বাস দিতে।

১ কোটি ৬৭ লাখ টাকা বকেয়া রাজস্ব দিতে এসে মেটলাইফ অ্যালিকোর প্রতিনিধি রওশন হোসেন জানান, উৎসবমুখর পরিবেশে প্রথমবারের মতো বকেয়া কর দিতে পেরে আমরা অত্যন্ত খুশি। এনবিআরের এমন আয়োজন আমাদের মুগ্ধ করেছে। এর মাধ্যমে ভবিষ্যতে সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় হবে।

এলটিইউতে হালখাতার বেশ কয়েকদিন আগেই বাংলাদেশ থাই অ্যালুমিনিয়াম এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক ৩ কোটি ৬১ লাখ টাকা বকেয়া রাজস্ব পরিশোধ করেছেন। তবে আজ হালখাতার অনুষ্ঠানেও উপস্থিত তারা।

হালখাতার মাধ্যমে সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় করা ও রাজস্ববান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে এলটিইউরসম্মেলন কক্ষে ‘রাজস্ব হালখাতা’ বিষয়ে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। স্বাস্থ্য ও পরিকল্পনা কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জনাব জাহিদ মালেক এমপি প্রধান অতিথি ও এফবিসিসিআই এর সভাপতি আব্দুল মাতলুব আহমাদ বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে এলটিইউর কর কমিশনার মো. আলমগীর হোসেন সভাপতিত্ব করেন।

অনুষ্ঠানে আগত সম্মানিত করদাতাগণ ও তাদের প্রতিনিধিরা এমন ব্যতিক্রমী আয়োজনের জন্য এনবিআর ও এলটিইউকে ধন্যবাদ জানান। ভবিষ্যতে এ ধরণের আয়োজন অব্যাহত রাখারও আহ্বান জানান। এ আয়োজনের মাধ্যমে একদিকে বাংলার ঐতিহ্যকে লালন, অপরদিকে করদাতাদের সাথে সুসর্ম্পক তৈরি ও রাজস্ববান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি হবে বলে তারা মনে করেন।